সিএনজি চায় না নগরবাসী


সিএনজি চালিত অটোরিকশা চায় না নগরবাসীরা। তাদের দাবি সিএনজি একেবারেই বন্ধ হয়ে যাক। সিএনজি চালকদের অত্যাচারে অতিষ্ট তারা।
ঢাকা ও চট্টগ্রামে ২ দিন সিএনজি ধর্মঘটের খবরে প্রতিক্রিয়ায় এমনটাই জানিয়েছে নগরের বিভিন্ন শ্রেণি, পেশার মানুষ। এ সংক্রান্ত খবর অর্থসূচকের ফেসবুক পাতায় প্রকাশিত হওয়ার পর এমন প্রতিক্রিয়া পাওয়া যায়। উবার, পাঠাওর মতো অ্যাপ ভিত্তিক যাত্রী সেবা বন্ধের দাবিতে ইতোমধ্যে সিএনজি চালকরা লাগাতার কর্মসূচি দিয়ে যাচ্ছে। আর এর পক্ষে বিপক্ষে সমালোচনা চলছে অনলাইন অফলাইন সর্বত্র।

আজ ২৭ নভেম্বর ও আগামীকাল ২৮ নভেম্বর ঢাকা ও চট্টগ্রামে সিএনজি চলবে না। ঢাকা ও চট্টগ্রাম জেলা সিএনজি অটোরিকশা শ্রমিক ঐক্য পরিষদ উবার, পাঠাও এর মতো অ্যাপ ভিত্তিক পরিবহন সেবা বন্ধসহ আট দফা দাবিতে এই দুই দিনের ধর্মঘট পালন করবে।

এ খবরটি দেশের প্রথম অনলাইন বিজনেস পোর্টাল ‘অর্থসূচক ডটকম’ প্রকাশ করে। এরপর সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যম ফেসবুকে অর্থসূচকের পাতায় খবরটি শেয়ার করা হয়। সেই পোস্টে শতাধিক ব্যক্তি মন্তব্য করেছে। তাদের প্রত্যেকের দাবি, শহরে সিএনজি চালিত অটোরিকশার কোনো প্রয়োজন নেই। এধরণের ধর্মঘট শুধু দুই দিন নয়, আজীবন হওয়া উচিত।

সিএনজি অটোরিকশা একেবারেই বন্ধ হয়ে যাওয়ার দাবি জানিয়েছেন বেশিরভাগ ব্যক্তি। তারা মন্তব্য করেছেন, সিএনজি চালকদের এ ধর্মঘটে কোনো লাভ হবে না। বরং এতে উবারের জনপ্রিয়তা আরো বাড়বে।

সিএনজি অটোরিকশা চালকদের ‘অত্যাচারীও’ বলেছেন অনেকে। আফরোজা আক্তার নামের একজন মন্তব্য করেছেন, ঠিক আছে, সিএনজি চালকদের এ চ্যালেঞ্জ গ্রহণ করলাম। যদি প্রয়োজন হয়, বাসে চড়বো। সালাহ উদ্দিন নামে একজন ব্যক্তি মন্তব্যে লিখেছেন তার সিএনজি অভিজ্ঞতা। তিনি লিখেছেন, গতকাল যাত্রাবাড়ি থেকে ‘পাঠাও’তে গেলাম নিউমার্কেট ভাড়া আসলো মাত্র ১৮৬ টাকা। আর আসার সময় সিএনজিতে ৩০০টাকা তাও তার হাতে পায়ে ধরে।

অনেকেই মন্তব্য করেছেন সিএনজি চালকরা যাত্রীদের হয়রানি করে, জিম্মি করে। তাদের ‘অযৌক্তিক’ ৮ দফা দাবিকে পূরণ না হওয়ারও দাবি জানিয়েছেন অনেকে।

এরশাদুল ইসলাম নামে একজন ফেসবুক ব্যবহারকারী লিখেছেন, আমার মনে হয় এবার সময় এসেছে জনগণের এক হওয়ার। ওরা এক হয়ে যদি জনগণকে জিম্মি করতে পারে তবে কেন জনগন তার নিজের স্বার্থের জন্য এক হতে পারবে না?

ইশ্রাত এন্টারপ্রাইজ নামে একটি ফেসবুক ব্যবহারকারী লিখেন, সিএনজি একটি জরুরি পরিবহণ। তারপরেও তাদের সমর্থনে একজন মানুষ কেও খুঁজে পাওয়া গেলনা।

Leave a Reply