এক সিমে সব অপারেটর চালু আগস্টে

মোবাইল ফোন নম্বর অপরিবর্তিত রেখে অপারেটর বদলের (এমএনপি) প্রক্রিয়া শুরু হতে যাচ্ছে আগামী আগস্ট মাসে। অর্থাৎ আগামী মাস থেকেই গ্রাহকরা এই সুবিধা নিতে পারবেন।
এ কাজের দায়িত্ব পাওয়া প্রযুক্তি কোম্পানি ইনফোজিলিয়ন বিডি টেলিটেক কনসোর্টিয়াম লিমিটেড এমএনপি প্লাটফর্মে মোবাইল নেটওয়ার্ক অপারেটর, টেলিফোন নেটওয়ার্ক অপারেটর ও অন্যান্য অপারেটরদের সংযুক্ত করেছে। ইনফোজিলিয়নের ব্যবস্থাপনা পরিচালক মাবরুর হোসাইন জানিয়েছেন, টেলিকট নিয়ন্ত্রক সংস্থা ৩১ জুলাইয়ের আগেই সব কাজ শেষ করার নির্দেশনা দিয়েছে। একইসঙ্গে আগস্টে এই সেবার চালু ব্যাপারে নির্দেশনা রয়েছে। তিনি বলেন, গ্রাহকদের এই সেবা দিতে আমরা ২০ জুলাইয়ের মধ্যে পুরোপুরি প্রস্তুত হবো।

জানা গেছে, তিন অপারেটর এই নেটওয়ার্কের সঙ্গে যুক্ত হয়েছে। সর্বশেষ গত ২৪ জুন যুক্ত হয়েছে বাংলালিংক। এর আগে প্রথমে গ্রামীণফোন এবং পরে রবি যুক্ত হয়। কিন্তু রাষ্ট্রায়ত্ত কোম্পানি টেলিটক এখনও এই নেটওয়ার্কে যুক্ত হয়নি।
মাবরুর বলেন, আমি আশা করছি- টেলিটক এই ২০ জুলাইয়ের মধ্যে সেবাটির সঙ্গে যুক্ত হওয়ার প্রক্রিয়া চালাবে। কারণ নিয়ন্ত্রক নির্ধারিত সময়ের মধ্যেই এই সেবা চালু করতে চায়।
গত বছরের ৩০ নভেম্বর টেলিকম নিয়ন্ত্রক সংস্থা এমএনপি সেবার লাইসেন্স তুলে দেয় ইনফোজিলিয়ন বিডির হাতে। ওই সময়ে ১৮০ দিনে কাজ শেষ করে সেবা দেয়ার নির্দেশনা দেয়া হয়।
এ সেবা চালু হওয়ার পর গ্রাহকরা ৩০ টাকা ফি দিয়ে নম্বর ঠিক রেখে অপারেটর পরিবর্তনের আবেদন করতে পারবেন। আবেদন করার ৭২ ঘণ্টার মধ্যে তার অপারেটর বদলে যাবে। পুনরায় অপারেটর পরিবর্তন করতে হলে তাকে ৯০ দিন অপেক্ষা করতে হবে।
নম্বর পরিবর্তনের ঝক্কিতে যেতে চান না বলে সেবায় সন্তুষ্ট না হওয়ার পরও অনেকে এতদিন অপারেটর বদলাতে পারেননি। এমএনপি চালু হলে তারা নম্বর ঠিক রেখেই অন্য অপারেটরে যাওয়ার সুযোগ পাবেন। ফলে অপারেটররাও তাদের সেবার মান উন্নত করতে চেষ্টা চালাবে বলে সরকার আশা করছে।

স্মার্টফোন আসক্তি মস্ত বিপদ ডেকে আনছে মস্তিষ্কে

একটু পর পর নিজের স্মার্ট ফোনের স্ক্রিনে না তাকালে ফারিয়ার চলেই না। মিনিটে মিনিটে-ঘণ্টায় ঘণ্টায় মাথা ঝুঁকিয়ে স্মার্টফোনটায় চোখ না রাখলে যেনো থাকতে পারেন না তিনি। গভীর রাত পর্যন্ত স্মার্টফোনের পর্দায় চোখ আটকে রাখা এবং সকালে ঘুম থেকে জেগেই আবার ফোনের স্ক্রিনে আটকে থাকাটাই তার অভ্যাস!

তার ভয় হয়, স্মার্টফোনটি হাতছাড়া হলে কিভাবে থাকবো?
এমন অনাকাঙ্ক্ষিত ভীতির নাম ‘নোমোফোবিয়া’ বা নো মোবাইল ফোবিয়া । মোবাইলফোন নেই! এমন ‘ভীতিকর’ পরিস্থিতি যারা ভাবতেই পারেন না তাদের জন্যই নতুন যুগের নতুন এই শব্দ।

তবে সারাদিন মোবাইল ফোনে মেতে থাকাদের পরিণতি সুখকর নয় এমন বার্তা দিচ্ছে একাধিক জরিপ,গবেষণা।

মানুষের মোবাইলফোন ব্যবহারের মাত্রা নিয়ে গবেষণারত নিউ ইয়র্ক স্টেট ইউনির্ভাসিটির সহকারি অধ্যাপক কাগলার ইলদিরিম জানিয়েছেন স্মার্টফোন আসক্তি ব্যক্তির জীবনে মারাত্মক নেতিবাচক প্রভাব ফেলছে।

তিনি বলেন,‘অতিরিক্ত স্মার্টফোন ব্যবহার ব্যক্তির সমাজ জীবনে নেতিবাচক প্রভাব ফেলে। এর চেয়েও বেশি নেতিবাচক প্রভাব ফেলে পরিবার ও বন্ধুদের মধ্যে সম্পর্কের বেলাতে।’

স্মার্টফোন আসক্তি ব্যক্তির স্বাভাবিক কর্মক্ষমতাকে হ্রাস করে জানিয়ে তিনি বলেন,‘স্মার্টফোন এবং এই ফোনে সার্বক্ষণিক আসা নোটিফিকেশন দেখার অভ্যাস ব্যক্তির কর্মক্ষমতা এবং পড়ালেখার জন্য মারাত্মক ক্ষতিকর হতে পারে। কারণ মন স্মার্টফোনে পড়ে থাকলে মনস্থির করে কাজে-পড়ায় মন দেয়া প্রায় অসম্ভব।’

রেডিওলজিক্যাল সোসাইটি অব নর্থ আমেরিকার একটি ছোট্ট গবেষণাপত্রও দিচ্ছে এমন বার্তা। প্রতিবেদনে উঠে আসা ফলাফল বলছে, স্মার্টফোন আসক্তি ব্যক্তির মস্তিষ্কের কার্যক্রমে প্রভাব ফেলছে।

১৯ জন স্মার্টফোন আসক্ত এবং ১৯ জন অনাসক্ত, মোট ৩৮ জন কিশোরের ওপর একটি গবেষণা করে কোরিয়া ইউনিভার্সিটি। গবেষণা দেখা যায়, আসক্তি নেই এমন ১৯ জন কিশোরের তুলনায় ১৯ জন আসক্ত কিশোরের মস্তিষ্কে গামা অ্যামিনোবোটিক অ্যাসিড বা গাবা’র পরিমাণ বেশি।

গবেষণা প্রধান ড. ইয়ুং সুক সেও বলেন,‘গাবা মস্তিষ্কে নিউরোনকে বাধাগ্রস্থ করে। এটা ব্যক্তিকে উদ্বেগ, নিদ্রাহীনতা এবং বিষন্নতার পাশাপাশি অমনযোগী করে তোলে।’

তাহলে উপায়?
প্রযুক্তির এই সময়ে একেবারেই প্রযুক্তিহীন থাকাটা যৌক্তিক নয়। তবে সব কিছুরই সীমা আছে। সেই সীমা নিজেকেই ঠিক করতে হবে, নিজের স্বার্থে। অতিরিক্ত ভার্চুয়াল সামাজিক যোগাযোগের চেয়ে সামনাসামনি যোগাযোগ এবং পরিবার-স্বজনদের সঙ্গে সময় কাটানোর পুরোনো কায়দা আবারও রপ্ত করতে হবে। আর আসক্তির মাত্রা বেশি হয়ে গেলে দিনের কিছু কিছু সময়ে স্মার্টফোন বন্ধ রাখতে পারেন। এক্ষেত্রে বিশেষজ্ঞরা স্মার্টফোনে সামাজিক মাধ্যম থেকে বেশি দূরত্ব বজায় রাখতে বলছেন। সম্ভব হলে ফেসবুক,টুইটারের মতো সামাজিক যোগাযোগের অ্যাপগুলো আনইন্সটল করার তাগিদ দিয়েছেন তারা।

গুগলের ডাটা কন্ট্রোল ও সেভিং অ্যাপ ‘ডাটালি’

বাংলাদেশের মত উন্নয়নশীল দেশগুলোর ইন্টারনেট ব্যবহারকারীরা হিসেব করে ইন্টারনেট ডাটা ব্যবহার করেন। বিশেষ করে মোবাইল কোনো অ্যাপ কত ডাটা খরচ করছে কিংবা ব্যাকগ্রাইন্ডে কোনো অ্যাপ ডাটা খরচ করছে কী না তা জানেন না অনেকেই। এজন্য গুগল আজ থেকে বাংলাদেশে অবমুক্ত করলো ডাটা কন্ট্রোল ও সেভিং অ্যাপ ‘ডাটালি’। বৃহস্পতিবার রাজধানীর একটি হোটেলে আয়োজিত এক সংবাদ সম্মেলনে অ্যাপটি বাংলাদেশের ইন্টারনেট ব্যবহারকারীদের জন্য অবমুক্ত করার ঘোষণা দেন গুগলের এশিয়া প্যাসেফিকের ইন্ডাস্ট্রি হেড গোলাম কিবরিয়া।

তিনি বলেন, গুগল তাদের সাতটি অ্যাপ দিয়ে ইতোমধ্যে ১ বিলিয়ন মানুষের মন জয় করে নিয়েছে। এবার প্রতিষ্ঠানটি আরও ১ বিলিয়ন ইউজার তৈরি করতে চায়। এজন্য বাংলাদেশসহ উন্নয়নশীলদেশগুলোকে টার্গেট করা হয়েছে। বিশেষ করে এসব দেশের মানুষকে ইন্টারনেটে আরও স্বাচ্ছন্দ দিতে ডাটা সেভিং অ্যাপ ডাটালি অবমুক্ত করলো। যার মধ্যে ইন্টারনেট ডাটা কন্ট্রোল ও ডাটা সেভ করা যাবে।

তিনি বলেন, গুগল বাংলাদেশে আইসিটি ইকোসিস্টেম ডেভেলপমেন্টে কাজ করছে। ইতোমধ্যে এদেশে গুগল বাস, গুগল অ্যাডসেন্স এবং গুগল স্ট্রিট ভিউ চালু করেছে। এছাড়াও গুগল চাইছে এদেশে ইন্টারনেট ইউজার বাড়ুক। এজন্যই ডাটা সেভিং অ্যাপ ডাটালি অনুষ্ঠানিকভাবে অবমুক্ত করা হলো।

গুগলকে বাংলাদেশকে টার্গেট করেছে উল্লেখ করে গোলাম কিবরিয়া বলেন, ২০২০ সালের মধ্যে বাংলাদেশে ৯ কোটি ইন্টারনেট ব্যবহারকারী হবে বলে আশা করা যাচ্ছে। এই বিপুল ইন্টারনেট ব্যবহারকারীদের জন্য নিত্যনতুন সেবা আনতে গুগল কাজ করছে।

গুগলের এই কর্মকর্তা জানান, ডাটালি নামের অ্যানড্রয়েড অ্যাপটি গুগল প্লে স্টোরে পাওয়া যাচ্ছে। অ্যানড্রয়েড ৫.০ কিংবা তারও বেশি উন্নত অ্যানড্রয়েডের উন্নত সংস্করণের যেকোনো স্মার্টফোনে এটি বিনামূল্যে ডাউনলোড করে ইনস্টল করা যাবে। শুধু বাংলাদেশ নয় যেসব দেশের ব্যবহারকারীরা প্লে স্টোর ব্যবহারেরর সুযোগ পান তারাও অ্যাপটি ব্যবহার করার সুযোগ পাবেন।

সংবাদ সম্মেলনে জানানো হয়, ডাটালি নামের নতুন অ্যাপটির মাধ্যমে জানা যাবে কোন অ্যাপ কত ডাটা খরচ করছে। ব্যাক গ্রাউন্ডে কোন অ্যাপ ডাটা খরচ করছে কী না তাও জানা যাবে। এছাড়াও ডাটা কন্ট্রোলের জন্য বিশেষ ফিচার রয়েছে অ্যাপটিতে। ফলে যেকোনো অ্যাপে ডাটা খরচ বন্ধ করে রাখারও সুযোগ আছে।

গুগল দাবি করছে এই স্মার্টফোনে এই অ্যাপ ইনস্টল করলে ৩০ শতাংশ মোবাইল ডাটা সেভ করা যাবে।
লিংক: https://goo.gl/afhzLy

ঢাকায় আসছে রোবট ‘সোফিয়া’

সৌদি আরবে প্রথম নাগরিকত্ব পাওয়া নারী রোবট সোফিয়া এবার ঢাকায় আসছেন। তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলকের আমন্ত্রণে আগামী ৫ ডিসেম্বর ঢাকায় পৌঁছানোর কথা রয়েছে সোফিয়ার।

গতকাল সোমবার এ তথ্য নিশ্চিত করেছেন তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী। জানা গেছে, আগামী ৬ ডিসেম্বর ঢাকায় শুরু হতে যাওয়া দেশের বৃহত্তম তথ্য-প্রযুক্তি সম্মেলন ডিজিটাল ওয়ার্ল্ডের উদ্বোধনী দিনে উপস্থিত থাকবেন আলোচিত নারী রোবট সোফিয়া।

বঙ্গবন্ধু আন্তর্জাতিক সম্মেলন কেন্দ্রে অনুষ্ঠিত হবে ডিজিটাল ওয়ার্ল্ড ২০১৭। এ অনুষ্ঠানে সোফিয়ার সঙ্গে থাকবেন তার ‘জন্মদাতা’ ডক্টর ডেভিড হ্যানসন।

তথ্য প্রযুক্তি বিভাগ জানিয়েছে, ডিজিটাল ওয়ার্ল্ডের উদ্বোধনী অনুষ্ঠানের পর স্থানীয় সাংবাদিকদের মুখোমুখি হবে সোফিয়া। সামনাসামনি দেখা পাওয়ার সুযোগ তো মিলবেই। সঙ্গে দর্শকদের প্রশ্নের জবাবও দিতে পারেন তিনি। ৬ ডিসেম্বর রাতেই সোফিয়ার ঢাকা ছাড়ার কথা রয়েছে।

কৃত্রিম বুদ্ধিমত্তা, ভিজুয়াল ডেটা, ফেশিয়াল রিকগনিশন ফিচার মেশিন লার্নিং পদ্ধতি যুক্ত থাকায় ওয়াই-ফাই কানেকশনে এসে নিজ সিদ্ধান্তেই মানুষের প্রশ্নের উত্তর দেন সোফিয়া।

রোবটটি নির্মাণ করেছে হংকংভিত্তিক ফার্ম হানসন রোবটিক্স। এর অবয়ব হলিউড অভিনেত্রী অড্রে হেপবার্নের মতো।সোফিয়াকে চালু করা ২০১৫ সালের ১৯ এপ্রিল। চলতি বছরের ১১ অক্টোবর তাকে প্রকাশ্যে আনা হয়।

অ্যান্ড্রয়েড মোবাইলের প্যাটার্ন লক ভুলে গেলে খোলার উপায়


অ্যান্ড্রয়েড ফোনের প্রাইভেসির জন্য আমরা অনেকেই প্যাটার্ন লক ব্যবহার করে থাকি। এই লক খুবই কার্যকরী কারণ এই লক ওপেন করা ছাড়া কেউ ফোনের ভেতরে প্রবেশ করতে পারে না। আবার এই প্যাটার্ন নিজেই ভুলে গেলে দুর্ভোগের শেষ থাকে না। এ সমস্যা থেকে রেহাই পেতে হলে মোবাইল ফোন রিসেট কিংবা কাস্টমার কেয়ারে যাওয়া ছাড়া আপনার হাতে আর কোনো অপশন নাই। কেউ কেউ একে হার্ড রিসেট বলে কারণ এটি সেটের একচুয়্যাল ফ্যাক্টরি সেটিংস ফিরিয়ে আনে। আসুন জেনে নেই কিভাবে আমরা কোনো অ্যান্ড্রয়েড সেট রিসেট দেবো।

প্রথমেই ফোনটির সুইচ অফ করুন, এবার ব্যাটারি ১০ সেকেন্ডের জন্য রিমুভ করুন। আবার ব্যাটারি লাগিয়ে একসঙ্গে ‘up volume key’, ‘Power button’ এবং ‘Home button’ চেপে ধরতে হবে যতক্ষণ না Recovery Mode Screen আসে। স্যামসাং মোবাইলের ক্ষেত্রে উপরের পদ্ধতি কাজ করে।

আবার সিম্ফোনি কিংবা ওয়াল্টন মোবাইলের ক্ষেত্রে মডেল অনুযায়ী ‘up volume key’, ‘Power button’ কিংবা ‘Down volume key’, ‘Power button’ চেপে ধরলেই Recovery Mode Screen চলে আসে এক্ষেত্রে হোম বাটনে চেপে ধতে হয় না।

এরপর ভলিউম কী ব্যবহার করে কার্সর নিচে নামিয়ে ‘wipe data/factory reset’ অপশনে আনুন এবং সিলেক্ট করার জন্য হোমে বাটনে প্রেস করুন। এখন নিশ্চিত করার জন্য আরেকটি স্ক্রিন আসবে এখানে ‘Yes’ বাটন সিলেক্ট করতে হবে।
এবার কিছুসময় অপেক্ষা করুন রিসেট হওয়ার পর আপনার ফোন আপনা-আপনি চালু হবে, ততক্ষন অপেক্ষা করুন।

রিসেট করার সময় আপনাকে যা মনে রাখতে হবে:
১. ইন্টারনাল মেমোরি বা ফোন মেমোরির ইন্সটল করা সমস্ত অ্যাপ ও ডাটা হারিয়ে যাবে।
২. ফোন মেমোরিতে সেভ করা ফোন নাম্বার মুছে যাবে।
৩. আপনাকে আবারও আপনার প্রয়োজনীয় অ্যাপগুলো ইন্সটল করে নিতে হবে।
৪. আপনার কাস্টমাইজ করা সমস্ত সেটিংস মুছে যাবে।

ঢাকায় রোবট রেস্তোরাঁ


শুধু খাবারই পরিবেশন করে না, এক টেবিলের খাবার অন্য টেবিলের ক্রেতা নিয়ে নিলে তাকে রোবট বলে ওঠে, ‘নট ইওর মিল’।
রেস্তোরাঁয় আপনাকে খাবার কে দিয়ে যায়? ওয়েইটার দিয়ে যায় কিংবা নিজেকে গিয়ে নিয়ে আসতে হয়। আর বাফেট হলে টে্বিলে সাজিয়ে রাখা বিভিন্ন পদের খাবার থেকে পছন্দমতো খাবার তুলে নেন। তবে একটা রোবট যদি খাবার দিয়ে যায় তাহলে কেমন হয়?

সেই অনুভূতিটাই উপভোগ করতে পারবেন মোহাম্মদপুরের রোবট রেস্তোরাঁয়।

আসাদগেট থেকে শ্যামলীর দিকে কিছুদুর এগোলেই চোখে পড়বে ফ্যামিলি ওয়ার্ল্ডের ভবন। সেটার দোতলায় এই রেস্তোরাঁ।

রেস্তোরাঁয় ম্যানেজার তানভীর তন্ময়ের সঙ্গে কথা বলে জানা যায়, রেস্তোরাঁটি যাত্রা শুরু করেছে ১৬ নভেম্বর থেকে। দুপুর ১টা থেকে রাত ১১টা পর্যন্ত খোলা থাকে। বসার ব্যবস্থা আছে ১০০ জনের, আছে ওয়াইফাই।

তিনি বলেন, “বর্তমানে ৪টি সেট মেন্যু পরিবেশন করছি, সবগুলোরই দাম ৫শ’ টাকা। প্রথম মেন্যুতে আছে কাচ্চি বিরিয়ানি, মুরগির রোস্ট, কাবাব, সালাদ ও পানি। দ্বিতীয় মেন্যুতে মিলবে পোলাও, মুরগির রোস্ট, খাসির মাংসের রেজালা, কাবাব, সালাদ এবং পানি। এছাড়াও আছে পিৎজা ও পাস্তার সেট মেন্যু।”
রোবট সম্পর্কে তানভীর তন্ময় বলেন, “আপাতত দুটি রোবট চালু থাকলেও ভবিষ্যতে আরও রোবট আনার পরিকল্পনা আছে আমাদের।”

“রোবটগুলো আনা হয়েছে চীন থেকে, নাম ‘ইয়ুইদং’, বাংলায় যার অনুবাদ চলমান আনন্দ। ১৬ জিবি মেমরির এই রোবটগুলো চলাফেরা করে দুটি পৃথক চৌম্বকীয় লাইনের উপর, এসময় রোবটের পিঠে বসানো ডিজিটাল পর্দায় বাজতে থাকে গান।”

“খাবার কোন টেবিলে নিয়ে যেতে হবে তার নির্দেশনা দেওয়া হয় এই পর্দাতেই। চলমান রোবটের সামনে কেউ দাঁড়িয়ে থাকলে তাকে রোবট বলে ‘প্লিজ লেট মি পাস’। খাবার পৌঁছে দিয়ে রোবট বলবে, ‘প্লিজ টেক ইওর মিল, বন অ্যাপেটিট।’ এক টেবিলের খাবার অন্য টেবিলের ক্রেতা নিয়ে নিলে তাকে রোবট বলবে, ‘নট ইওর মিল’। এমন আরও অনেক ফিচারস আছে রোবটগুলোর, তবে ভিড়ের কারণে সবগুলো আমরা এখনও চালু করিনি।”

রেস্তোরাঁয় স্বপরিবারে খেতে আসা মোহাম্মদ হোসেন বলেন, “বিডিনিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকমের এক প্রতিবেদন থেকে রোবট রেস্তোরাঁর খবর পাই। আর তাই ছুটির দিনে দুই ছেলেকে রোবট দেখাতে নিয়ে এসেছি।”

সাড়ে তিন বছরের ছেলে সৌধ আধো বোলেই জানায় রোবট দেখে সে অনেক মজা পেয়েছে। আর খাবার খেয়ে ৮ বছরের রোহানও বলে ভালো। সবমিলিয়ে মা-বাবার মনও ভালো।

রেস্তোরাঁয় এমন পরিবার নিয়ে খেতে আসা ক্রেতাই বেশি। রোবট খাবার নিয়ে চলা শুরু করলে শিশুরাও তার আগে পিছে ঘুরতে থাকে। এতে অবশ্য খাবার ক্রেতার টেবিলে পৌঁছাতে একটু দেরি হয়, তবে শিশুদের দমিয়ে রাখে এমন সাধ্য কার। আর রোবট টেবিলে পৌঁছালে বড়রাও সেলফি তুলতে ব্যস্ত হয়ে যান।
চাইলে আপনিও একদিন রোবট দেখে আসতে পারেন। সঙ্গে পেটপূজা তো থাকলোই।

ফেসবুকের কারণে ফোনের চার্জ শেষ হয়ে যাওয়া বন্ধ করবেন যেভাবে


স্মার্ট ফোনের ব্যাটারির চার্জ কোনো কোনো অ্যাপ বা সফটওয়ারের কারণে বেশি খরচ হয় তা খতিয়ে দেখলে দেখা যাবে বেশিরভাগ চার্জ ব্যবহার করে ফেসবুক। বিভিন্ন অ্যান্ড্রয়েড অথবা আইফোনের অপারেটিং সিস্টেমের ফেসবুক অ্যাপে অটোপ্লে ভিডিও, লোকেশন ট্র্যাকিং, ও তাৎক্ষণিক নোটিফিকেশন সুবিধাগুলো প্রচুর পরিমাণে চার্জ নষ্ট করে।
স্বতন্ত্র ফেসবুক মেসেঞ্জারে মেসেজ পাঠানো বা অডিও ও ভিডিও কলেও প্রচুর পরিমাণ ব্যাটারির চার্জ ব্যবহার করা হয়।

ফেসবুক অ্যাপের সেটিং বদলে দিয়ে আপনি ফোনের ব্যাটারি লাইফ আরও বাড়িয়ে নিতে পারেন। তবে সেটিং বদলে দিলে ফেসবুকের সবগুলো সুবিধা আপনি পাবেন না।
ফেসবুকের অ্যান্ড্রয়েড ফোন ভার্সনে একটি ‘ডাটা সেভার’ অপশন আছে। সেটিং থেকে ‘ডাটা সেভার’ অপশন চালু করলে তা ইন্টারনেটের ব্যান্ডউইডথ অনেক সাশ্রয়ীভাবে ব্যবহার করে। ফলে ব্যাটারির চার্জ কম খরচ হয়।

ফেসবুক অ্যাপের ভিডিও অটোপ্লে অপশন ও মোবাইলে নোটিফিকেশন বন্ধ রাখলেও চার্জ কম খরচ হবে। আপনি অ্যান্ড্রয়েড বা স্মার্ট ফোনে যখন ফেসবুক ব্যবহার করবেন না, তখন সেটি বন্ধ করে রাখলেও ব্যাটারির চার্জ সাশ্রয় হবে।
মোবাইলে ফেসবুক অ্যাপ ব্যবহার করা সুবিধাজনক। কিন্তু সেটিই সর্বক্ষণ বন্ধুদের সাথে যুক্ত থাকার একমাত্র পদ্ধতি নয়। অ্যাপ ব্যবহারের পরিবর্তে ফেসবুকের মোবাইল সাইটে গিয়েও আপনি আপনার ফেসবুক একাউন্টে লগ ইন করতে পারেন। ফেসবুক অ্যাপ ব্যবহারের পরিবর্তে মোবাইলের ব্রাউজার থেকে ফেসবুকে ঢুকলে ব্যাটারির চার্জ কম খরচ হওয়ার কথা।

ব্যাটারির চার্জ সাশ্রয়ের জন্য আপনি চাইলে ‘ফেসবুক লাইট’ নামের অ্যাপটিও ব্যবহার করতে পারেন। এটি কম শক্তিশালী ফোন সেট ও ধীরগতির ইন্টারনেট ব্যবহারকারীদের জন্য তৈরি করা হয়েছে ফেসবুক লাইট। এই অ্যাপ থেকে ফেসবুকের খুব মৌলিক কাজগুলো করা যায়। যেমন এটি দিয়ে স্ট্যাটাস দেয়া ও কোনো কিছু শেয়ার দেয়ার কাজগুলো করতে পারবেন।

দেখে নিন ফেসবুক এর কয়েকটি চমৎকার অপশন


প্রতিদিন প্রায় ১০০ কোটিরও বেশি মানুষ সোশ্যাল নেটওয়ার্কিং সাইট ফেসবুক ব্যবহার করেন। কিন্তু ফেসবুকে এমন বেশ কিছু মজাদার অপশন রয়েছে, যা এখনও অনেকেই জানেন না।
আসুন জেনে নিই, ফেসবুকের দারুণ মজাদার কয়েকটি বিষয়।
১. ফেসবুকে আপনার প্রথম পাঠানো মেসেজটি দেখতে হলে, তার জন্য টাইমলাইনের নীচের দিকে স্ক্রল করে লাভ নেই। দ্রুত করতে হলে ফেসবুকের যাবতীয় ডেটা ডাউনলোড করতে হবে। জেনারেল সেটিংস-এ গিয়ে সবচেয়ে নীচের লিঙ্কটিতে যেতে হবে। এ কাজটি সম্পন্ন হতে অবশ্য বেশ খানিকটা সময় লেগে যাবে। ডেস্কটপে কাজটি করতে হলে ফেসবুকের মেসেজে যান। কোন বন্ধুর মেসেজে গিয়ে ‘লোড ওল্ডার মেসেজেস’-এ যান। সেখানে আপনার এই বন্ধুর করা যাবতীয় মেসেজ চলে আসবে। এবার লোড ওল্ডার মেসেজ অপশনের পাশে যে নম্বরটি এসেছে ইউআরএল-এ গিয়ে তার আগের নম্বরটি টাইপ করুন।
ব্যাস! এভাবে আরও পুরনো মেসেজে চলে যেতে পারবেন। এক সময় পাবেন একেবারে প্রথম মেসেজটি।
২. ফেসবুকে কাউকে এড়িয়ে যেতে চান? তা হলে আপনি সম্ভবত ‘রিড রিসিপটস’ এর ভক্ত নন। ফেসবুকে এই অপশনটি বন্ধ করার উপায় নেই। তাই থার্ড-পার্টি অ্যাপ ব্যবহার করতে হবে। ডেস্কটপ ইউজারদের জন্যে ‘ফেসবুক আনসিন অ্যাপ’ এবং ‘ক্রসরাইডারস চ্যাট আনডিটেক্টেড’ অ্যাপ এই কাজটি করতে পারবে।
৩. ফেসবুক মেসেঞ্জার থেকে ‘লাস্ট অ্যাকটিভ’ টাইম সরাতে হলে মেসেঞ্জার অ্যাপটি ডিলিট করে দিন মোবাইল থেকে। ডেস্কটপে ব্যবহার করুন অথবা মোবাইল ব্রাউজারে ফেসবুক ব্যবহার করুন।
৪. প্রোফাইলে ছবির গোপনীয়তা বাড়াতে পারবেন। প্রথমে প্রোফাইলে গিয়ে ছবির ওপরে ডান পাশের মেনু বাটন ক্লিক করুন। ‘ভিউ অ্যাজ…’ থেকে ঠিক করে নিন কারা এই ছবি দেখতে পারবে। ‘ওনলি মি’ করে নেওয়ার পরেও সার্চ করলে আপনার ছবি ঠিকই বেরিয়ে আসবে। এর কারণ হল, আপনার যে বন্ধুটি এই ছবিটি ট্যাগ করেছে তার সেটিংস-এ ছবিটি পাবলিক বা ফ্রেন্ডস অব ফ্রেন্ডস -এ সিলেক্ট করে দেওয়া হয়েছে। আপনার অ্যাকটিভিটি লগ-এ যান। ডান পাশের কোনার ত্রিকোণ বোতামটি ক্লিক করুন। বামের কলাম থেকে ফোটোস-এ ক্লিক করুন। সেখান থেকে ‘ফোটোস অব ইউ’ ক্লিক করুন। উপরের ব্যানার থেকে ‘শেয়ার উইথ’ এর পর পাবলিক, ‘ফ্রেন্ডস অব ফ্রেন্ডস’ পছন্দ করুন। ছবিটি কোন গ্রুপে দেখাচ্ছে তা দেখে নিন। এবার যে ছবিটি দিয়েছে তাকে এটি মুছে ফেলার অনুরোধ করুন। অথবা ওই বন্ধু ছবিটিকে শুধু ‘ফ্রেন্ডস’ বা ‘ওনলি মি’ অপশনে দেওয়ার অনুরোধ করুন।
৫. যারা আপনার ফেসবুকের বন্ধু নন, তারা মেসেজ পাঠালে ইনবক্সের উপরে তা দেখাবে না। এগুলো অন্য এক ফোল্ডারে আসে। মেসেজ-এ যান এবং আদার (99+) -এর মধ্যে যান। সেখানেই পাবেন অন্য মানুষের পাঠানো মেসেজ।
সূত্র: http://bengaltime.com/%E0%A6%A6%E0%A7%87%E0%A6%96%E0%A7%87-%E0%A6%A8%E0%A6%BF%E0%A6%A8-%E0%A6%AB%E0%A7%87%E0%A6%B8%E0%A6%AC%E0%A7%81%E0%A6%95-%E0%A6%8F%E0%A6%B0-%E0%A6%95%E0%A7%9F%E0%A7%87%E0%A6%95%E0%A6%9F%E0%A6%BF/

জিমেইলে অ্যাটাচ্‌ড ফাইল হারিয়ে ফেললে খুঁজে দেবে ডিটাচ


অনেক জিমেইল ব্যবহারকারী কোনো মেইলের সঙ্গে থাকা অ্যাটাচ্‌ড ফাইল খুঁজে পেতে হিমশিম খেয়ে যান। জিমেইলের মেইল বা অ্যাটাচ্‌ড ফাইল খোঁজার জন্য একটি সার্চ অপশন রয়েছে। কিন্তু কারও ইনবক্সে অনেক বেশি মেইল থাকলে তার মধ্য থেকে একটি অ্যাটাচ্‌ড ফাইল খুঁজে বের করা বেশ ঝামেলার ব্যাপার।
এই সমস্যার সমাধানের জন্য ডিটাচ নামের একটি এক্সটেনশন বা অ্যাডঅন ইন্সটল করে নিতে পারেন।
ডিটাচ বিনামূল্যেই ডাউনলোড করতে পারবেন। এটি আপনার ইনবক্সের একপাশে আপনার পাঠানো এবং আপনাকে প্রেরিত সব ধরনের ফাইল থাম্বনেইল আকারে প্রদর্শন করবে। এটি বেশিরভাগ ওয়ার্ড, ইমেজ, অডিও ও ভিডিও ফাইল ফরম্যাট সনাক্ত করতে পারে। আপনি চাইলে ডিটাচের ঘরে নির্দিষ্ট ফাইলের নাম লেখে অথবা ফাইল ফরম্যাট দিয়ে সার্চ দিতে পারবেন।

জিমেইলে অ্যাটাচ ফাইল খোঁজার সময় ডিটাচ জিমেইলের সার্চ বারটিও ব্যবহার করে। ফলে সেখানে কোনো কিছু লিখে সার্চ দিলে ওই নামে কোনো অ্যাটাচ্‌ড ফাইল থাকলে সেটিও ডিটাচ প্রদর্শন করবে।
যদি আপনার প্রয়োজনীয় কোন ফাইল কার পাঠানো মেইলের সঙ্গে সংযুক্ত ছিল তা মনে না থাকে থাকে তাহলে ডিটাচ আপনার খুব কাজে আসবে। এই এক্সটেনশনটি সার্চ রেজাল্ট দেখানোর সময় একটি অ্যাটাচ ফাইল কত তারিখের মেইলের সাথে সংযুক্ত ছিল তাও প্রদর্শন করবে।

ডিটাচ ব্যবহার করার অনেকগুলো সুবিধা থাকলেও একটা ঘাটতি আছে। গুগল এটি দিয়ে এক দিনে নির্দিষ্ট সংখ্যক ফাইলের বেশি সার্চ করতে দেয় না।
ডিটাচ গুগল ও অপেরার ব্রাউজারে ইন্সটল করা যাবে।

ক্রোমের চেয়ে দ্রুত গতির হবে ফায়ারফক্স কোয়ান্টাম


মাত্র কয়েক বছর আগেও ইন্টারনেট ব্যবহারকারীদের কাছে সবচেয়ে জনপ্রিয় ব্রাউজার ছিল মজিলা ফায়ারফক্স। ইন্টারনেট জায়ান্ট গুগল নিজস্ব ব্রাউজার গুগল ক্রোম ছাড়ার পর জনপ্রিয়তা হারায় ফায়ারফক্স।
এবার গুগল ক্রোমের সঙ্গে নতুন করে প্রতিযোগিতা শুরু করার জন্য বাজারে ছাড়া হল ফায়ারফক্স কোয়ান্টাম।
ফায়ারফক্স দাবি করছে, তাদের নতুন আপডেট ফায়ারফক্স কোয়ান্টাম দিয়ে জনপ্রিয় কিছু সাইটে গুগল ক্রোমের চেয়ে দ্রুত ব্রাউজ করা যায়। ওই সাইটগুলোর মধ্যে গুগলেরও কয়েকটি সাইট রয়েছে।
ফায়ারফক্স কোয়ান্টাম তার ব্রাউজারটির সর্বশেষ ভার্সনের চেয়ে দিগুণ গতিতে কাজ করে বলেও দাবি করছে এটির নির্মাতারা।

মজিলা জানিয়েছে, এর নতুন ব্রাউজার অন্যান্য ব্রাউজারগুলোর অর্ধেক মেমোরি ব্যবহার করে কাজ করে। এর ফলে মানুষ ইন্টারনেটে আরও দ্রুত কাজ করতে পারবে।
একটি ব্লগ পোস্টে প্রতিষ্ঠানটি দাবি করে, ফায়ারফক্সের নতুন আপডেটটি সম্পূর্ণ নতুন প্রযুক্তির সাহায্যে চলবে। ফায়ারফক্স কোয়ান্টাম দেখতেও একেবারে নতুন মনে হবে।
ইন্টারনেট ব্যবহারকারীদের সুবিধার্থে নতুন রুপে ফায়ারফক্স এমন সাজানো হয়েছে যেন ব্রাউজ করার সময় সেটি দিয়ে দ্রুত বিভিন কাজ করা যায়।
মজিলা দাবি করছে, ফায়ারফক্স কোয়ান্টাম দিয়ে গুগল ক্রোমের চাইতেও দ্রুত গুগল সার্চ ইঞ্জিন, গুগল লগ ইন পেজ, উইকিপিডিয়া, টাম্বলার ও শাটারশক এর সাইট ব্রাউজ করা যায়।

অন্যদিকে গুগল ডক, ইনস্টাগ্রাম, বিবিসি ও লাইফহ্যাকার-এর পেজ দেখার জন্য ফায়ারফক্স কোয়ান্টামের চাইতে গুগল ক্রোম ভালো কাজ করে বলে জানিয়েছে তারা।
মজিলা ফায়ারফক্সের নতুন ইন্টারফেসের নাম দিয়েছে ফোটন । ফোটন এমনভাবে নকশা করা হয়েছে যেন সেটি যেকোনো ফোন, ট্যাব, ল্যাপটপ, বা ডেস্কটপে স্বাতন্ত্র্য বজায় রেখে ইন্টারনেট ব্যবহারকারীকে সাহায্য করতে পারে।
নতুন নকশা তৈরির জন্য মজিলার ডিজাইনাররা বাস্তবে মানুষ কিভাবে ইন্টারনেট ব্রাউজ করে তা নিয়ে গবেষণা করেছে। তাদের উদ্দেশ্য ছিল শুধু বর্তমানের বিভিন্ন ধরনের যন্ত্র নয়, ভবিষ্যতের প্রযুক্তির জন্য উপযুক্ত একটি ব্রাউজার তৈরি করা।
সূত্র: http://www.poriborton.com/poriborton-feature/87489